Photos
Posts

Head to our site now to pre-order ONAGOfly at a crazy price: https://youtu.be/HhzQ_Y-uh5k #ONAGOfly #Drones

PRE-ORDER NOW AT: http://www.ONAGOfly.com ONAGOfly is the palm-sized smart drone doubling as your personal cameraman with a 15 megapixel photos and 1080p HD ...
youtube.com
ONAGOfly is a smart nano drone that features aerial photography through a 15-megapixel camera. And it all fits in the palm of your hand.
onagofly.com
Posts
ONAGOfly is a smart nano drone that features aerial photography through a 15-megapixel camera. And it all fits in the palm of your hand.
onagofly.com
ONAGOfly is a smart nano drone that features aerial photography through a 15-megapixel camera. And it all fits in the palm of your hand.
onagofly.com

বাংলাদেশসহ বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক সম্প্রতি তাদের লোগোতে কিছুটা পরিবর্তন এনেছে।

ফেসবুকের নতুন এই লোগোতে ব্যাকগ্রাউন্ড রঙ ও 'ফেসবুক' শব্দটির লেখার ডিজাইনে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। ফলে অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কাছেই বিষয়টি সহজে ধরা পড়বে না।

নতুন লোগোতে আগের লোগোটির চেয়ে আরও বেশি ফ্ল্যাট ডিজাইন এবং স্পষ্ট ফন্ট ব্যবহার করা হয়েছে। এর পাশাপাশি লোগোতে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন করা হয়েছে ফেসবুক শব্দের ‘a’ ও ‘b’ অক্ষর দুইটির ডিজাইনে। ফলে দুইটি লোগো পাশাপাশি না র...াখলে নতুন-পুরাতনটা বুঝতে পারবেন না ফেসবুক ব্যবহারকারীরা।

নতুন লোগো এখনো সারাবিশ্বের সকল ব্যবহারকারীরাদের কাছে পৌঁছায়নি। খুব শিগগির ফেসবুকের সকল ব্যবহারকারী নতুন লোগো পাবে বলে জানা গেছে।

See More

Weekly, FaYa8 will randomly give away FREE CELEBRITY DRESSES to those who have shared this link https://www.facebook.com/faya8com/posts/467705750049338

Faya8 recently announced that it is adopting a brand-new business model called follow-up selling. Follow-up selling is a model which was pioneered by top bra...
youtube.com

স্কোর আপডেট:
মেঘাছন্ন ফতুল্লায় এখন মধ্যাহ্ন ভোজের
বিরতি। দলীয় স্কোর ১১১/৩; ক্রিসে আছেন ইমরুল
কায়েস আর সাকিব আল হাসান।

২ লাখ ৯৫ হাজার কোটির বাজেট, প্রবৃদ্ধি ৭%.....

সর্বোচ্চ বরাদ্দ জনপ্রশাসনে, সর্বনিম্ন সংস্কৃতি ও ধর্মে...

স্থানীয় সরকারে বরাদ্দ কমানোর প্রস্তাব

...

তৈরি পোশাকে কর বাড়ছে

মোদির সফরে সতর্ক ডিএমপি

টানা দ্বিতীয়বারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হলেন দেশটির ওয়ানডে অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স..

ওপার বাংলার ছবিতে ফাহমিদার গান

সাপ নিয়ে নাচার সময় হাতে পেঁচানো সাপের ছোবল খেলেন নৃত্যশিল্পী ও অভিনেত্রী চাঁদনী। তাৎক্ষণিক ভাবে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের হত্যার অভিযোগে করা মামলায় মুবারকের পুনর্বিচারের নির্দেশবৃহস্পতিবার মিরপুর স্টেডিয়ামে স্লিপে ক্যাচ ধরার অনুশীলনের সময় বাঁ-হাতের তর্জনিতে চোট পান মাহমুদুল্লাহ। তার ইনজুরিতে কপাল খুলেছে নাসির হোসেনের...

See More

১.
সৎ পুলিশ অফিসার জগলুল সাহেব তাঁর একমাত্র ছেলে
সাগরের তৃতীয় জন্মদিন উদ্যাপন করছেন। বাইরে
প্রচণ্ড গরম। ঘরের ভেতর এসি চালিয়ে কেক কাটা
হচ্ছে। তখনই সেখানে প্রবেশ একদল ভিলেনের।...

Continue Reading

কামারুজ্জামানের দুটি ইচ্ছে!
মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে
দণ্ডপ্রাপ্ত ফাঁসির আসামি
জামায়াত নেতা কামারুজ্জামান
কারা কর্তপক্ষের কাছে তার দুটি...
ইচ্ছে পূরণের দাবি করেছেন।
প্রথম ইচ্ছেটি হচ্ছে, ফাঁসির পর তার
লাশ গোসল
না করিয়েই
পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা।
দ্বিতীয় ইচ্ছেটি হচ্ছে, শুক্রবারে
যেন তাকে ফাঁসি
দেওয়া হয়।

See More

অবশেষে গ্রেফতার হলো ফারাবি। ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে কিছুক্ষণ আগে তাকে আটক করা হয় বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। দুপুর দুইটায় র‌্যাব সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

"বাংলাদেশ এর ২য় রাউন্ডে খেলার সমীকরন সহজ করতে
কালকের ম্যাচে শ্রীলঙ্কা কে ইংল্যান্ড এর সাথে জিততে হবে!!"

২৫ ফেব্রুয়ারি সকালে ফেসবুকে আমাকে কে যেন একজন প্রশ্ন করলেন, 'ম্যাডামকে কি গ্রেফতার করবে?' উত্তরে তাকে লিখলাম 'বোকা বন্ধু শত্রুর চেয়েও বেশি খারাপ।' জবাবে তিনি আবার লিখলেন, তিনি আমার উত্তর বুঝতে পারেননি। সেদিন আমার উত্তরটা তাকে আর বোঝাইনি। গত দুই দিনে বেগম খালেদা জিয়ার গ্রেফতার নিয়ে প্রচুর আলোচনা এবং লেখালেখি হচ্ছে। বিএনপির কিছু নেতা তো ইতিমধ্যে বেগম খালেদা জিয়া জেলে গেলে তারা কীভাবে দল চালাবেন সেই দিকনির্দেশনাও দিয়ে দিচ্ছেন। বিজ্ঞ উকিল সাহেবরা তো সাব-জেলও বানিয়ে ফেলেছেন!!! ম্য...াডাম নাকি তার গ্রেফতারের পরে করণীয় কী- তা সব জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের টেলিফোনে জানিয়ে দিচ্ছেন! (খবরটি কি অতি গোপনীয় হওয়ার কথা নয়?) গ্রেফতার পরবর্তী করণীয় নিয়ে ম্যাডাম তার অফিসে তার সঙ্গে অবরুদ্ধ নেতা নজরুল ইসলাম খানের সঙ্গে কী গোপন পরামর্শ করছেন তাও পত্রপত্রিকায় ঘটা করে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে!!! পুরো বিষয়টি একটি গভীর ষড়যন্ত্রের নীলনকশা বলেই অনেকের মনে হচ্ছে। অনেক বিদগ্ধ রাজনীতিবিদের মনে প্রশ্ন, সরকার কেন খালেদা জিয়াকে এখন গ্রেফতার করতে যাবে? সন্দেহ নেই আন্দোলন প্রলম্বিত হয়েছে কিন্তু চূড়ান্ত আন্দোলনে বিএনপিরই জয় হবে। তার পরেও চরম বাস্তবতা হলো- আন্দোলন কিছুটা হলেও স্তিমিত বা নিয়ন্ত্রিত হয়ে গেছে। এখন এই সরকার কী এতই বোকা যে, ম্যাডামকে এই মুহূর্তে গ্রেফতার করে আন্দোলনের আগুনে নতুন করে পেট্রল ঢেলে দেবে? খালেদা জিয়া তো সরকারের নিয়ন্ত্রণে জেলেই আছেন এবং সরকারের লোকেরা তার অফিসের বাইরে ও ভিতরে থেকে সার্বক্ষণিক তাকে পাহারা দিয়ে রাখছে। সরকারবৈরী কারও পক্ষেই তার সঙ্গে দেখা করতে সেখানে ঢুকতে দেওয়া হয় না। এমন কি আত্দীয়স্বজন যারা যায় তারা কোনো রাজনৈতিক তথ্যাদি আদান-প্রদান করতে পারবেন না। দু-একজন ভিতরে গিয়ে ফেঁসে গেছে এখন বেরিয়ে আসতে পারছেন না। ম্যাডামের প্রতিটি পদক্ষেপ সরকারের নখদর্পণে। গুলশানের পুরো অফিসটি সম্পূর্ণভাবে সরকারের শক্ত নিয়ন্ত্রণে। সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিনের গুলশান অফিস থেকে বের হয়ে যাওয়া, জেলার ভারপ্রাপ্ত নেতাদের কাছে টেলিফোনে নির্দেশ পাঠানো, নজরুল ইসলাম খানের সঙ্গে শলাপরামর্শের খবর পত্র-পত্রিকায় সরবরাহ করা ইত্যাদি গোপনীয় তথ্যাদি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে প্রকাশ করার পরও যদি কেউ না বুঝতে চান তাহলে কী করার আছে? গুলশান অফিসকে সাব-জেল ঘোষণা করার আবদারও এই নীলনকশারই অংশ। সবার মনে রাখা ভালো হবে যে, বিএনপি চেয়ারপারসন জেলে গেলে আন্দোলন সফলতার দিকে যাবে এবং এককেন্দ্রিক নেতৃত্ব সৃষ্টি হবে। এই মুহূর্তে খালেদাকে জেলে নিলে সরকার আন্দোলনের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলবে। তাকে গ্রেফতার এবং অন্য কোনো জেলে নিয়ে গেলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের একচ্ছত্র অধিপতি হবেন এবং তখন তারেক রহমানের এককভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে। খালেদা গ্রেফতারের সঙ্গে সঙ্গে দলের আপসকামী সিনিয়র নেতারা ছিটকে যাবে দল থেকে। তৈরি হবে সাহসী ত্যাগী নতুন নেতৃত্ব, যারা সরকারের জন্য অনেক বেশি মাথাব্যথার কারণ হবে। এই নতুন ত্যাগী নেতারা তারেক রহমানের নেতৃত্বে দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনের মাধ্যমে বিএনপিকে চূড়ান্ত বিজয়ে নিয়ে যাবে। ইতিহাস তা-ই সাক্ষ্য দেয়। সরকার খালেদা জিয়াকে জেলে নিয়ে তারেক রহমানকে পথ করে দেওয়া, অন্তত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে ভুল করবেন না। তবে চেয়ারপারসনের চার পাশের সব সরকারবৈরী নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করার চাপ অবশ্যই অব্যাহত থাকবে। মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান, সাবেক সংসদ সদস্য।

See More

৫ই জানুয়ারির নির্বাচন তার (শেখ হাসিনা) মতেই ছিল অপূর্ণাঙ্গ। সূতরাং প্রধানমন্ত্রীকে সেই প্রতিশ্রুতির কথা স্মরণ করিয়ে দিতে আমাদের লজ্জা কেন হবে বলে মন্তব্য করেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন।

শনিবার দুপুরে রাজধানীতে প্রয়াত সাংবাদিক এবিএম মূসার স্মরণে আয়োজিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মঈনুল হোসেন বলেছেন, চলমান সঙ্কটের উৎস নির্বাচন। এই সঙ্কটের সমাধান তো প্রধানমন্ত্রীর হাতে। তিনি নতুন নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, সবার সঙ্গে আলোচনা করে আবার... পূর্ণাঙ্গ নির্বাচন দেয়া হবে।

তিনি বলেন, এখন কথা বলতে গেলে ভয় পাই। মূসা ভাই নীরব থাকা সমর্থন করেননি। এজন্য বলছি, নির্বাচন দিলে সন্ত্রাসী তৎপরতা বন্ধ হতে বাধ্য। কিন্তু ক্ষমতাসীনরা নির্বাচন বাদ দিয়ে পুলিশি কায়দায় সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ করছেন। এই অবস্থায় সুযোগ নিচ্ছে, সুবিধাবাদীরা।

ব্যারিস্টার মঈনুল বলেন, আজকে আমরা সাংবাদিক-আইনজীবীরা নিজেদের শক্তি হারিয়ে দলীয় শক্তিতে পরিণত হয়েছি। এতে কেবল নিজেরাই শক্তিহীন হইনি, পুরো জাতিকে শক্তিহীন করছি। গণতন্ত্র মাঠে মারা যাচ্ছে। গণতন্ত্র রক্ষার শক্তি রাজনীতিবিদরা নন। সাংবাদিক ও আইনজীবীদের এ কাজ করতে হবে।

এবিএম মূসা ও সেতারা মূসা ফাউন্ডেশন আয়োজিত সভায় ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, চলমান সঙ্কট ভয়াবহ রূপ নেয়ার আগেই সতর্ক করে গেছেন প্রয়াত সাংবাদিক এবিএম মূসা। তিনি এই সঙ্কটের রাজনৈতিক সমাধানের কথা বলেছিলেন। অস্ত্রের ভাষা যে রাজনীতির ভাষা হতে পারে না, এ কথাও জোর দিয়ে বলে গেছেন। তিনি বলেন, অস্ত্রে ভাষা যদি রাজনীতির ভাষা হয়, তাহলে তার মোকবিলার ভাষা কি হবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সভায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, সাহসী ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা করেছেন মূসা ভাই। তিনি সত্যকে সত্য বলেছেন। বিরোধিতা করলে, সেটাও ছিল তথ্যনির্ভর। আমরা এখানে বিতর্ক সৃষ্টি করতে আসিনি। তাই, তার রাজনৈতিক জীবন নিয়ে আলোচনা করছি না।

সৈয়দ আবুল মকসুদের সভাপতিত্বে ও রোবায়েত ফেরদৌসের পরিচালনায় মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন- প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, নিউজ টুডের সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, মানবজমিন-এর প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, প্রবীণ সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর, বৈশাখী টিভির সিইও মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আসিফ নজরুল, জাতীয় প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি কাজী রওনক হোসেন, সাংবাদিক আব্দুর রহীম, গোলাম মর্তুজা প্রমুখ।

See More

দীর্ঘদিন ধরে বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে বাহির থেকে খাবার নিয়ে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না পুলিশ। জানা যায় কার্যালয়ে খাবার প্রবেশ করতে না দেওয়ায় শুকনো খাবার খেয়েই দিনযাপন করছেন খালেদাসহ কার্যালয়ে অবস্থানরতরা। এতে মাঝে মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন কার্যালয়ে অবস্থানকারীরা।

কার্যালয়ের ভেতর খালেদারসহ অবস্থান করছেন, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল কাইয়ুম, প্রেস সচিব ...মারুফ কামাল খান, বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মাহবুব আলম ডিউ, নিরাপত্তা সমন্বয়ক অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল আবদুল মজিদ, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, কিছুসংখ্যক অফিস স্টাফ ও কর্মকর্তা-কর্মচারী।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টার দিকে প্রথম দফায় খাবার সরবরাহকারী একটি পিকআপ ভ্যান কার্যালয়ের ঢোকার চেষ্টা করলে বাধা দেয় পুলিশ। চালকসহ ভ্যানটিকে আটক করে নিয়ে যায় সাদা পোশাকধারী পুলিশ। ভ্যানে ১২০ প্যাকেট খাবার ও প্রয়োজনীয় পানির বোতল ছিল। দ্বিতীয় দফায় রাত সাড়ে দশটার দিকে পুনরায় কিছু শুকনা খাবার কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করা হলে তাতেও পুলিশ বাধা দেয়। ১১ তারিখ থেকে পুলিশ এভাবে কাউকে কার্যালয়ে খাবার নিয়ে প্রবেশ করতে দিচ্ছেনা।

এরপর গত ১৫ ফেব্রুয়ারি কার্যালয়ে আবার খাবার প্রবেশে বাধার কারনে কার্যালয়ের পশ্চিম পাশের পকেট গেটের সামনে দাঁড়িয়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের খাবার সরবরাহ বন্ধ করা হয়নি। কার নির্দেশে খাবার বন্ধ করা হয়েছে, আমরা জানতে চাই। খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে খাবার প্রবেশ নিয়ে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে সরকার। তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া অভুক্ত রয়েছেন। তার কার্যালয়ে অবস্থানকারীদের রেখে তিনি খেতে পারছেন না।

খালেদা জিয়ার প্রেস উইংয়ের সদস্য শাইরুল কবির খান বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভকে জানান, কার্যালয়ে থাকা শুকনো খাবার খেয়েই খালেদাসহ তারা দিনযাপন করে যাচ্ছেন। কোনদিন চিড়া, কোনদিন মুড়ি, কোনদিন মোয়া, কোনদিন বিস্কুট খেয়েই চলছে খালেদাসহ তাদের দিনযাপন।

উল্লেখ্য, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের বর্ষপূর্তির সমাবেশ ঘিরে ৩ জানুয়ারি রাত থেকে গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়া অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন। এরপর তিনি এখান থেকেই ৫ জানুয়ারি সারাদেশে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেন, যেটি এখনো অব্যাহত রয়েছে। এর সঙ্গে ফাঁকে ফাঁকে হরতালও চলছে।

See More

বেগম খালেদা জিয়া গ্রেফতার হলে দলের হাল ধরতে পারেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্ত্রী ড. জোবাইদা রহমান। সূত্র জানায়, বিএনপির চেয়ারপার্সনের অনুপস্থিতিতে কে দলের দায়িত্ব পালন করবেন এ নিয়ে এরইমধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছে এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী হয়তো লন্ডন থেকে দেশে ফিরে দলের হাল ধরবেন তার পূত্র বধূ ডা. জুবায়দা । দুটি মামলায় হাজির না হওয়ায় গত বুধবার খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। এর পর থেকেই গুঞ্জন চলছে, যেকোনো সময় খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করা হতে প...ারে।

এদিকে, দুটি দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকা সত্বেও সম্ভবত আদালতে আত্ম সমর্পন করবেন না বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান বলেন, ‘‘নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই সম্ভবত আদালতে যাচ্ছেন না খালেদা জিয়া।

কারণ আদালতে হাজির হওয়ার মতো স্বাভাবিক পরিস্থিতি নেই। তিনি তো এমনিতে তার গুলশান অফিসে বন্দি হয়ে আছেন। তিনি আদালতে আত্মসমর্থন করবেন কিভাবে’’ ? তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে হয়রানি করার জন্যই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে তার বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করা হয়। খালেদা জিয়ার এ পারিবারিক আইনজীবী আরো বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন তো পালিয়ে যান নি, তাহলে কেন তার আত্মসমর্পনের প্রশ্ন উঠবে ? নিরাপত্তা জনিত কারণে তিনি তার অফিসের বাইরে যেতে পারছেন না, সরকার তাকে তার অফিসে দীর্ঘ দিন ধরে বন্দি করে রেখেছে। তবে খালেদা জিয়া যেকোন সময় গ্রেফতারের জন্য প্রস্তুত।

বিএনপির চেয়ারপার্সনের অপর আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, খালেদা জিয়া আদালতে আত্মসমর্পন করবেন কি না সেব্যাপারে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয় নি। খালেদা জিয়ার উপর মানসিক চাপ সৃষ্টি করার জন্যই এই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির হাই কমান্ড ও খালেদার আইনজীবীরা এ ব্যাপারে সরকারের কৌশল নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষন করছেন এমনকি দলের প্রধানের বিরুদ্ধে সরকারের ভবিষ্যত যেকোন পদক্ষেপ মোকাবেলায় প্রস্তুতিও নিচ্ছেন তারা।এমনকি খালেদা জিয়া গ্রেফতার হলে তার অনুপস্থিতিতে কে দলের দায়িত্ব নিবেন সে বিষয়েও আলোচনা চলছে।

দলের এক নেতা বলেন, সরকার চায় না খালেদা গ্রেফতার হোক। তাকে কেবল চাপের মধ্যে রাখার জন্য এসব করা হচ্ছে। তবে তাকে গ্রেপ্তার করা হলে চলমান আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে যাবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আর কর্মসূচির মধ্যে অবরোধের সঙ্গে হরতাল ও অসহযোগ আন্দোলনের ঘোষণাও থাকতে পারে। সূত্র জানায়, খালেদা জিয়া গ্রেফতার হলে দলের পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে এবং চলমান আন্দোলনের কৌশল কি হবে তা নিয়ে এরইমধ্যে দলের দুই শীর্ষ নেতার সাথে আলোচনা করেছেন খালেদা জিয়া। তার এই নির্দেশনার ভিত্তিতে দলের শীর্ষ নেতারা তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের প্রয়োজনীয় নিক নির্দেশনা দিচ্ছেন।

See More

মেহেরপুর প্রতিনিধি :
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, ‘আপনার রাজনীতির মৃত্যু হয়েছে। এখন মানুষ হত্যার দায় নিয়ে বাকি দিনগুলো আপনাকে কারাগারে কাটাতে হবে। কারাগারে যাওয়ার জন্য মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে ক্ষণ গুণতে থাকুন।’

গতকাল দুপুরে মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে আয়োজিত সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হানিফ এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, পেট্রল বোমা দিয়ে মানুষ মেরে এ দেশে রাজনীতি করতে পারব...েন না। মেহেরপুর শহরের শহীদ সামসুজ্জোহা পার্কের শহীদ মিনারের বেদীতে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সদ্য বিদায়ী সভাপতি ও মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক সাংসদ আলহাজ জয়নাল আবেদীন।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম মোজাম্মেল হক এমপি এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এএসএম কামাল হোসেন। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মেহেরপুর-১ আসনের এমপি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন, মেহেরপুর-২ আসনের এমপি মকবুল হোসেন, মেহেরপুর মহিলা আসনের এমপি সেলিনা আক্তার বানু, যশোর ও কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদক এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। এর আগে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মাহবুব-উল আলম হানিফ এবং দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবিএম মোজাম্মেল হক এমপি।

সম্মেলন শেষে কেন্দ্রীয় নেতারা বিকেল ৪টার পর মেহেরপুর সার্কিট হাউসে বসে কাউন্সিলরদের নিয়ে সমঝোতা করে মেহেরপুর-১ আসনের এমপি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেনকে সভাপতি ও গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেককে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মনোনয়ন দেন।

See More